আহমেদ ইলিয়াসের কবিতা ।। অনুবাদ হাইকেল হাশমী

পা বা গিল

হাম ভি কায়সে শাজার থে জব ধুপ থি

 সার পে সায়া না থা

 অউর সুরাজ কি বে-রাহ্ম কিরনেঁ থিঁ জো

ডালিয়োঁ, পাত্তিয়োঁ কো জালাতি রাহিঁ

 অউর ইয়ে ডালিয়াঁ সাবযগুঁ পাত্তিয়াঁ

তেজ কিরনোঁ কে সব ওয়ার সাহতি রাহিঁ,

অউর ঝুলাস্তি রাহিঁ

উস মুসাফির কি খাতির জো আয়া না থা।

 

হাম ভি কায়সে শাজার হ্যাঁয় কে জব ধুপ থি

হাম নে সোচা নাহি

আনে ওয়ালা জো সুরজ সে বেযার হ্যায়

সির্ফ সায়ে কি খাতির রুকেগা ইয়াহাঁ

ফ্বির চলা জায়ে গা

 

হাম শাজার হ্যাঁয়, ইয়াহা সে কাহাঁ জায়েঁগে?

 

 মাটিতে জড়ানো পা

আমরাও যে কেমন বৃক্ষ ছিলাম যখন ছিল রৌদ্র,

মাথার উপর ছিল না কোন ছায়া

আর ছিল সূর্যের নির্দয় রশ্মি

পুড়তে থাকলো ডাল আর পাতা,

এই প্রশাখাগুলো সবুজ পাতাগুলো

তীক্ষ্ণ রশ্মির সব আঘাত সইলো

পুড়তে থাকলো

সেই পথিকের আশায় যে তখনও আসে নাই।

 

আমরাও যে কেমন বৃক্ষ ছিলাম যেখন ছিল রৌদ্র,

চিন্তা করি নি

তখন আগত পথিক সূর্য থেকে বিরক্ত

শুধু ছায়ার জন্য দাঁড়াবে এখানে

তারপর যাবে চলে

 

আমরাতো বৃক্ষ, এখান থেকে আর কোথায় যাব

 

রওশনী সব কে লিয়ে

রওশনী সুবহ কি কিরনোঁ কা হ্যায় নাম

রওসনী কো নাহি কার সাকতা হ্যায় তাকসিম কোই

সুবহ কি কিরনোঁ পে হ্যায় কিস কি আজারাদারী ।

 

সুবহ জব হোতি হ্যায় তো সায়লে রাওয়াঁ কিরনোঁ কা

ফ্বায়্লতা যাতা হ্যায় খুশবু কি তারহা

গ্বামযাদা চেহরোঁ কে রুখসারোঁ পর

জা বা জা বিখরে হুয়ে রাত কে আন্ধিয়ারোঁ পর ।

 

রওশনী ক্বায়েদ নাহি হো সাকতি

রওশনী রওযান-এ-যিন্দাঁ সে নিকাল আয়ী হ্যায়

শাবযাদা আখোঁ কি বিনায়ী মেঁ

হুসনে জানাঁ তেরী রানাই মেঁ

আরিয ও  লাব বকি খুদ আরাই মেঁ ।

 

রওশনী তেরে লিয়ে, মেরে লিয়ে

রওশনী দিন কে লিয়ে,

শাব কে লিয়ে

বান্দ আখোঁ কে লিয়ে, খুলতে হুয়ে লাব কে লিয়ে

 রওশনী সব কে লিয়ে ।

 

আলো সবার জন্য

আলো হলো ভোরের কিরণ

আলোর হয় না কোন বিভাজন

কারো দখলে নেই ভোরের কিরণ।

 

ভোরের বেলা আলোর জোয়ার

ছড়িয়ে পড়ে সুগন্ধির মতো

 দুঃখ ঢাকা মুখমণ্ডলের উপর

 চারিদিকে ছড়ানো রাত্রির অন্ধকারের উপর।

 

আলোকে করা যায় না বন্দী

আলো কারাগারের ফাঁকফোকর দিয়ে যায় বেরিয়ে

বিনিদ্র চোখের মণিতে

প্রিয়ার সৌন্দর্যে

ঠোঁট আর গালের সজ্জায়।

 

 আলো তোমার জন্য, আলো আমার জন্য

আলো দিনের জন্য, আলো রাতের জন্য

বন্ধ চোখের জন্য,  খোলা ঠোঁটের জন্য

আলো সবার জন্য।

Facebook Comments

comments

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

scroll to top